আলোচিতজাতীয়

কোটা ‘যতদূর সম্ভব’ বাদ দেয়ার সুপারিশ পর্যালোচনার কমিটির

আলোচিত বার্তা : সরকারি চাকরিতে সব ধরনের কোটার হার বিবেচনার সুপারিশের সিদ্ধান্ত নিয়েছে এ সংক্রান্ত সরকারি কমিটি। মুক্তিযোদ্ধা কোটার বিষয়ে মতামত চাওয়া হবে সুপ্রিম কোর্টের কাছে।

সোমবার মন্ত্রিসভাকে এ বিষয়ে অবহিত করেছেন কোটা পর্যালোচনা কমিটির নেতৃত্বে থাকা মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম।

বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সামনে বিস্তারিত তুলে ধরেন মোহাম্মদ শফিউল আলম। এ সংক্রান্ত সুপারিশ প্রায় চূড়ান্ত।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, সরকারি চাকরির কোটা ‘যতটা সম্ভব’ তুলে দিয়ে মেধার ভিত্তিতে নিয়োগের সুপারিশ করবে কমিটি।

তবে মুক্তিযোদ্ধা কোটা সংক্রান্ত আদালতের একটি রায় রয়েছে। ফলে, এই কোটার বিষয়ে বাস্তবতা তুলে ধরে সুপ্রিম কোর্টের মতামত চাওয়া হবে বলেও জানান সচিব। তিনি বলেন, আদালত এ বিষয়ে যে মত দিবে, সে অনুযায়ীই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

কমিটিতে মন্ত্রিপরিষদ সচিব ছাড়াও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, সরকারি কর্ম কমিশন, অর্থ বিভাগ এবং লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের সচিবরা সদস্য হিসেবে আছেন।

বর্তমানে সরকারি চাকরিতে নিয়োগে ৫৬ শতাংশ পদ বিভিন্ন কোটার জন্য সংরক্ষিত; এর মধ্যে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের জন্য ৩০ শতাংশ, নারী ১০ শতাংশ, জেলা ১০ শতাংশ, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী ৫ শতাংশ, প্রতিবন্ধী ১ শতাংশ।

কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারী ‘ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ’ কোটার পরিমাণ ১০ শতাংশে কমিয়ে আনার দাবি তুলেছিল। কোটায় প্রার্থী পাওয়া না গেলে মেধা তালিকা থেকে তা পূরণের দাবিও জানিয়েছিল তারা।

শিক্ষার্থীদের এই আন্দোলনে ক্ষুব্ধ হয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত ১১ এপ্রিল জাতীয় সংসদে কোটা পদ্ধতিকে বাতিল ঘোষণা করেন। তবে পরে সংসদে তিনি বলেন, কোটা পদ্ধতি থাকবে। মুক্তিযোদ্ধা কোটা ৩০ শতাংশ রাখতে হাই কোর্টের রায় আছে।

তবে এ মন্তব্যে আবার আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ে। পরে ২ জুন পর্যালোচনা কমিটি গঠন করে ১৫ কর্মদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়। পরে ১৯ জুলাই কমিটিকে আরো ৯০ কার্যদিবস সময় দেয়া হয়।

আরও দেখুন

এরকম আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এটাও পড়ুন

Close
Close