আলোচিতসারাদেশ

জমি দখল করতে গ্রামবাসীর সঙ্গে সংঘর্ষের পর গভীর রাতে মামলা করলো আবুল খায়ের গ্রুপ

আলোচিত বার্তা : নদী দখলের অভিযোগের পাঁচ মাস না পেরুতেই অবৈধভাবে জমি দখল করে ভরাট করতে গিয়ে গ্রামবাসীর সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে স্থানীয় ২১ জনকে আসামি করে গভীর রাতে মামলা করেছে আবুল খায়ের সিরামিক্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড।

হামলার ঘটনায় উভয় পক্ষের অন্ততঃ ৪০ জন আহত হলেও মামলা করছে শুধু আবুল খায়ের গ্রুপ।

গাজীপুরের কালীগঞ্জ পৌর এলকার বালিগাঁও গ্রামে শুক্রবার বিকেলে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটলেও শনিবার গভীর রাতে আবুল খায়ের সিরামিক্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড কালীগঞ্জ শাখার উপ-ব্যাবস্থাপক ও ইনচার্জ মোঃমর্তূজা মাহফুজ বাদী হয়ে স্থানীয় ২১ জনের নাম উল্লেখ এবং অজ্ঞাত আরো ৩০-৩৫ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন।

মামলায় আসামিদে বিরুদ্ধে বেআইনী জনতাবদ্ধে অস্ত্রশস্ত্র সহ বাদীর ফ্যাক্টরীতে আক্রমন করে হত্যার উদ্দেশ্যে ধারালো অস্ত্র দ্বারা আঘাত করে গুরুতর জখম, ভাংচুর করে ক্ষতিসাধন, পাঁচ লক্ষ টাকা চুরি এবং ভয়ভীতি প্রদানের অপরাধে পেনাল কোডের ১৮৬০ সালের ১৪৩/৪৪৮/৩২৩/৩২৪/৩২৫/৩২৬/৩০৭/৩৮০/৪২৭/৫০৬ ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে।

মামলার এজাহারের কালীগঞ্জ পৌর এলকার বালিগাঁও গ্রামের সামছুদ্দিনের তিন ছেলে শাহিন মিয়া (৩৫), সেলিম মিয়া (৪০) এবং আঃ রশিদ (৩৮), আঃ গনীর ছেলে রেজাউল (৩৩), মৃত আলাউদ্দিনের (টুনু) তিন ছেলে আলমগীর (৪০), অাকবর (৩৫), এবং আমিনুল (আসাদ) (২৮), মৃত সুলতানের দুই ছেলে সাফায়েত (৩৫) এবং এবাদুল্লাহ (২৮),  মৃত ছোমেদ আলীর ছেলে সিরাজ (৫০), মৃত কালাচাঁন ছেলে নাছির (৩৭),  নূর মোহাম্মদের ছেলে সোলেমান (৪০), হরিপদ দাসের ছেলে অধীর (৪২),  মৃত লাল মাহমুদের ছেলে জয়নাল (৪০), মৃত আবুল হোসেনের ছেলে সিরাজ (৩৮),  মৃত ফালুর ছেলে মামুন (৩০),  বজলুর দুই ছেলে মোমিন (৩৯) ও মাইনুল (৪২),  মোঃ আবুলের ছেলে সাইফুল (৩৮), মোঃ আজিজের ছেলে নূরু মিয়া (৪০), এবং মোঃ শাহাজাহানের ছেলে মোঃ শরিফকে (৪২) সহ আরো ৩০-৩৫ জনকে আসামি করা হয়েছে।

মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে কালীগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুর রহমান জানান, শনিবার রাতে স্থানীয় ২১ জনের নাম উল্লেখ এবং অজ্ঞাত আরো ৩০-৩৫ জনকে আসামি করে আবুল খায়ের সিরামিক্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড কালীগঞ্জ শাখার উপ-ব্যাবস্থাপক ও ইনচার্জ মোঃমর্তূজা মাহফুজ বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন। এখন পর্যন্ত কোন আসামিকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি। মামলার তদন্ত চলছে।

উল্লেখ্য : এর আগে গত মার্চ মাসে দিনে দুপুরে অবৈধ গজারী গাছের পাইলিং দিয়ে শীতলক্ষ্যা নদী দখলের অভিযোগ উঠে। পরে সরকারী সম্পদ দখল ও অপব্যবহারের অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনাস্থলে গিয়ে সত্যতা পেয়ে প্রাথমিকভাবে তাদের কাজ বন্ধ করেন কালীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. সোহাগ হোসেন। এছাড়াও নদী দখলের কাজে ব্যবহৃত নৌকা, গজারী গাছসহ যাবতীয় ষড়ঞ্জামাধী ওই সময় জব্দ করেন।

 

এ সংক্রান্ত আরো জানতে……….

অবৈধভাবে জমি দখল করতে গ্রামবাসীর উপর আবুল খায়ের গ্রুপের হামলা, আহত ৪০(ভিডিও সহ)

আরও দেখুন

এরকম আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close