সারাদেশ

গাজীপুরে মাণিক্য মাধবের রথযাত্রা ও রথমেলা শুরু (ভিডিও সহ)

বার্তাবাহক ডেস্ক : গাজীপুরে ভাওয়াল রাজাদের প্রতিষ্ঠিত প্রায় দেড়শ বছরের প্রাচীন ঐতিহ্যবাহী শ্রী শ্রী মানিক্য মাধবের রথযাত্রা ও রথমেলা শুরু হয়েছে।
শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে জেলা শহরের রথখোলায় রথটানের মধ্য দিয়ে রথযাত্রা শুরু হয়।
গাজীপুরের জেলা প্রশাসক ড. দেওয়ান মোহাম্মদ হুমায়ুন কবীর রথযাত্রা ও রথমেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।
জেলা প্রশাসক ড. দেওয়ান মোহাম্মদ হুমায়ুন কবীরের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আজমত উল্লা খান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আমিনুল ইসলাম, রথ মেলা উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব অধ্যক্ষ মুকুল কুমার মল্লিক, আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুল হাদী শামীম, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের স্থানীয় কাউন্সিলর হাসান আজমল ভূইয়া ও আয়েশা আক্তার প্রমুখ।
bartabahok
শনিবার রথ টানের মধ্য দিয়ে মাণিক্য মাধব নিজ বাড়ি থেকে শ্বশুড় বাড়ি যাচ্ছেন। আগামী ২২ জুলাই উল্টো রথযাত্রায় মাণিক্যমাধবের নিজ বাড়ি ফেরার মধ্য দিয়ে এবারের ৯ দিনব্যাপী রথযাত্রার শেষ হবে।
হিন্দু সম্প্রদায়ের কয়েক হাজার ভক্ত নর-নারী অংশ গ্রহন করেন।
এদিকে রথযাত্রা উপলক্ষে ২০ দিনব্যাপী রথমেলা শুরু হয়েছে। মেলায় শিশুদের খেলনা, মিষ্টির দোকান, তৈজষপত্র, আসবাবপত্রসহ নানা বাহারী সব জিনিসের পসরা নিয়ে বসেছেন দোকানীরা। এছাড়াও মনোরঞ্জনের জন্য মেলায় এসেছে নাগরদোলা ও সার্কাস ইত্যাদি। রথমেলায় হাজারো পূণ্যার্থী এবং সকল ধর্মের মানুষেরা অংশ নিচ্ছেন।
জানাযায়, ১২৭৮ বঙ্গাব্দ থেকে এ মেলা শুরু হয়েছিল। জনশ্রুতি আছে, রাজা কালি নারায়ণ রায় চৌধুরীর শ্রী সত্যভামা দেবী দেববাণী শুনতে পান। শুধু দৈববাণীই নয়, তিনি স্বপ্নে মাধব বিগ্রহ মূর্তি লাভ ও মূর্তি দিয়ে রথযাত্রা প্রচলনের নির্দেশ পান। রানীর বর্ণনা মতে, শ্রী শ্রী মাণিক্য মাধব, শ্রী শ্রী ঠাকুর মাধব, নীলম্বর মাধব, চক্রপানি মাধব, যশোমাধব ও বসুদের মাধব মূর্তিগুলো তার স্বপ্নে অদিষ্ট স্থান থেকে লাভ করেন।
প্রথম থেকেই শ্রী শ্রী মাণিক্য মাধবকে রথের ওপর অধিষ্ঠান করে এই রথযাত্রার প্রচলন করা হয় এবং তা ১৯৭১ সাল পর্যন্ত চলে আসছিল। মুক্তিযুদ্ধের সময় মূল্যবান কষ্টি পাথরের সব বিগ্রহের ক্ষতি সাধন করা হয় এবং পাকিস্তানী হানাদারেরা এসব মূর্তি রাজবাড়ী সংলগ্ন রাজদীঘিতে ফেলে দেয়। স্বাধীনতার পর রাজদীঘি থেকে ২টি মাধব বিগ্রহ মূর্তি উদ্ধার করে পুনরায় রথযাত্রা ও রথ উৎসব শুরু হয়।
১৯৮৪ সাল থেকে জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে ও তত্ত্বাবধানে মেলা পরচালিত হয়ে আসছে। ১৯৯২ সালে গাজীপুর পৌরসভার আর্থিক সহায়তায় নতুন একটি রথ নির্মিত হয়েছে। রথযাত্রা ও পুণ:যাত্রার দিন হাজার হাজার সনাতন ধর্মপ্রাণ মানুষ রথ টানায় অংশ নেন।
প্রচলিত বিশ্বাস রয়েছে যে, উপবাস করে শূচিশুদ্ধ মনে রথ টানায় অংশ নিলে পাপমুক্তি হয় এবং মনোবাসনা পূর্ণ হয়। রথটানের পর পুন্যার্থীরা শ্রী শ্রী মানিক্য মাধবের চরণে চিনি- কলা নৈবেদ্য দেয়। মাধবের পা স্পর্শ করিয়ে তা ফেরত দেয় হয় ভক্তকে। ভক্তবৃন্দ ভক্তি সহকারের সে প্রসাদ ও নির্মাল্য গ্রহণ করে ধন্য হয়।
ভিডিও :

আরও দেখুন

এরকম আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close